Home মাসলা মাসায়েল বদলী হজ করা যায়?

বদলী হজ করা যায়?

1
0
SHARE

বদলী হজ : একজনের হজ আরেকজনের আদায়
বদলী হজ অথ্যাৎ একজনের হজ আরেকজন আদায় করার বর্ণনা হাদীসে পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে প্রথম ব্যক্তির ওপর হজ ফরজ হওয়ার পর তিনি হজ পালন করতে স¤পূর্ণভাবে অক্ষম হলে দ্বিতীয় ব্যক্তির হজের সমুদয় খরচ বহন করে হজ আদায় করাতে পারবেন। এছাড়া কোন ব্যক্তি মৃত্যুকালে ওসিয়ত করে গেলে সেই হজ অন্যকে দিয়ে আদায় করানো উত্তরসূরীদের ওপর ওয়াজিব। যদি ওসিয়ত না করে যান অথচ তার ওপর ফরজ ছিল কিন্তু আদায় করে যেতে পারেনি তাহলে সন্তান সন্ততির ওপর তার হজ আদায় করানো উত্তম ।
বদলী হজের বিধানের ব্যাপারে কোন কোন বর্ণনায় পাওয়া যায়, যদি কোন ব্যক্তির হজের অক্ষমতা মৃত্যূ পর্যন্ত বহাল থাকে তখন ফরজ হজ তার মৃত্যুর পর অন্য কেউ আদায় করবে। কারণ মৃত্যুর পুর্ব পর্যন্ত তার ক্ষমতা ফিরে আসার সম্ভাবনা থাকে।
আর নফল হজের ক্ষেত্রে যে কোন সময় অন্য লোক তা আদায় করতে পারে যদিও ব্যক্তি জীবিত থাকে কিংবা তার ক্ষমতাও থাকে। বদলী হজ করার ব্যাপারে যে সব প্রমানাদি পাওয়া যায় তা নিন্মরূপ:
১. আবু রাজিন আল আকিলি থেকে বর্ণিত। তিনি এসে রাসুল (সা.) কে জিজ্ঞাসা করলেন, আমার পিতা খুব বৃদ্ধ তিনি হজ ও ওমরা করতে সমর্থ নন। সওয়ারির ওপর উঠেও চলতে পারেননা। রাসুল (সা.) বললেন, তোমার পিতার পক্ষ থেকে হজ ও ওমরা করো। ( তিরমিযি হাদীস নং ৮৫২)
২. হযতর ইবনে আব্বাস (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুল (সা.) এক ব্যক্তিকে বলতে শুনলেন ‘শুবরামার পক্ষ থেকে লাব্বায়িক’। তিনি বলেন, শুবরামা কে? লোককটি বললেন, আমার ভাই বা আত্বীয়। তিনি বলেন, তুমি কী নিজের হজ করেছ? লোকটি বললেন, না। তিনি বললেন, আগে নিজের হজ করো। পরে শুবরামার হজ করো। (আবু দাউদ-১৪২৪)
৩. হযরত আবদুল্লাহ বিন আব্বাস বলেন, একদা খাসআম গোত্রের এক মহিলা জিজ্ঞেস করলো, হে রাসুল্লাহ (সা.) আল্লাহর পক্ষ থেকে যে হজ ফরজ হয়েছে তা আমার পিতার ওপর বর্তিয়েছে অথচ তিনি অথচ তিনি অতি বৃদ্ধ সওয়ারীর ওপর স্থির হয়ে বসার ক্ষমতা নেই। আমি কী তার পক্ষ থেকে হজ আদায় করতে পারি? তখন রাসুল (স.) বললেন, হ্যাঁ। বর্ণনাকারি বলেন, এটি বিদায় হজের ঘটনা। (বোখারী- ১৪১৭)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here